দিল্লী ক্যাপিটালসের বিপক্ষে ১৫ রানের জয় পেল রাজস্থান

প্রকাশিত: ২৩শে এপ্রিল ২০২২ ০৭:০৬:৩৩
দিল্লী ক্যাপিটালসের বিপক্ষে ১৫ রানের জয় পেল রাজস্থান

আইপিএলে শুক্রবারের ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল দিল্লী ক্যাপিটালস ও রাজস্থান রয়্যালস। জস বাটলারের বিধ্বংসী শতকের ম্যাচে বল হাতে মুস্তাফিজসহ দিল্লীর সব বোলারই ছিলেন খরুচে। দিল্লীর বোলাররা মোটে দুটি উইকেটের পতন ঘটাতে সক্ষম হন মুস্তাফিজ, যার একটি আবার জস বাটলারের, যিনি হাঁকিয়েছেন এবারের আসরে নিজের তৃতীয় শতক। মুস্তাফিজের বলে ক্যাচ হাতছাড়ায় এদিন মেজাজ হারাতেও দেখা যায় দ্য ফিজকে। শেষদিকে আলোড়ন তোলে আম্পায়ারের একটি সিদ্ধান্ত।

টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন দিল্লীর অধিনায়ক রিশভ পান্ট। উদ্বোধনী জুটিতে দেবদূত পাড়িকালকে নিয়ে জস বাটলার গড়েন ১৫৫ রানের পার্টনারশিপ। ৩৫ বলে ৫৪ রান করে পাড়িকাল বিদায় নিলে ক্রিজে আসেন স্যামসন। বাটলার শতক হাঁকানোর পরও মারকুটে ব্যাটিং অব্যাহত রাখেন।

বাটলারকে বিদায় নিতে হয় ১৯তম ওভারের শেষ বলে, মুস্তাফিজুর রহমানের শিকার হয়ে। মুস্তাফিজের বলে ডেভিড ওয়ার্নারের তালুবন্দী হয়ে সাজঘরে ফেরার আগে করেন ১১৬ রান। ৬৫ বলের মোকাবেলায় হাঁকান ৯টি করে চার-ছক্কা। তার আগে বাউন্ডারি লাইনে রভম্যান পাওয়েল বাটলারের ক্যাচ ছেড়ে দিলে মেজাজ হারাতে দেখা যায় মুস্তাফিজকে। অধিনায়ক স্যাঞ্জু স্যামসন ১৯ বলে ৪৬ রান করে অপরাজিত থাকেন, তিনিও চড়াও হয়েছিলেন দিল্লীর বোলারদের ওপর। নির্ধারিত ২০ ওভারে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে রাজস্থানের পুঁজি দাঁড়ায় ২২২ রান।

রাজস্থানের আগ্রাসী ব্যাটিংয়ের সামনে এদিন অসহায় ছিলেন মুস্তাফিজুর রহমান, কূলদীপ যাদবরা। উইকেটের দেখা পেয়েছেন শুধু খলিল ও মুস্তাফিজ। এদের মধ্যে রান বেশি খরচ করেছেন খলিল। খলিল ৪৭ ও মুস্তাফিজ ৪৩ রান খরচ করেন। ৪ ওভার বল করে ললিত যাদব ৪১ ও কূলদীপ যাদব ৩ ওভার বল করে ৪০ রান বিলি করেন।

এমন বোলিংয়ের পর ম্যাচ জেতা কঠিন ছিল দিল্লীর জন্য, কারণ জিততে হলে টপকাতে হত এবারের আসরের সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ। বোলিং বিপর্যয়ের পর রিশভ পান্টের ৪৪, ললিত যাদবের ৩৭, পৃথ্বী শো এর ৩৭, ডেভিড ওয়ার্নারের ২৮ রানের ইনিংসগুলো দলকে জেতানোর জন্য যথেষ্ট ছিল না। ১৯তম ওভারে প্রসিধ কৃষ্ণ উইকেট মেডেন ওভার করে জয় প্রায় অসম্ভব করে তোলেন দিল্লীর জন্য।

শেষ ওভারে দিল্লীর প্রয়োজন ছিল ৩৬ রান। প্রথম ৩ বলে তিন ছক্কা হাঁকিয়ে ম্যাচ জমিয়ে তোলেন রভম্যান পাওয়েল। সেই বলে আম্পায়ার নো বল না দেওয়া নিয়ে উত্তেজনা ছড়ায়। নিদাহাস ট্রফিতে সাকিব আল হাসান যেভাবে মাঠ থেকে বের হয়ে যেতে বলেছিলেন সতীর্থদের, এদিন রিশভ পান্টও ঠিক একইভাবে, একই কারণে সতীর্থদের মাঠ থেকে বের হয়ে যেতে বলেন। যদিও উত্তেজনা সামলে আবারও শুরু হয় খেলা। এতে পাওয়েলও মোমেন্টাম হারিয়ে ফেলেন। শেষপর্যন্ত আর জিততে পারেনি দিল্লী। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ২০৭ রান সংগ্রহ করে মুস্তাফিজের দল। ফলে জোটে ১৫ রানের পরাজয়।

লগইন করুন


পাঠকের মন্তব্য ( 0 )